নীলফামারীতে আ. লীগ নেতার স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যার চেষ্টা

  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

নীলফামারীর সৈয়দপুরে সাবেক পৌর প্যানেল মেয়র ও ২ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি হিটলার চৌধুরী ভলুর দ্বিতীয় স্ত্রী সুরভী ইসলাম চৌধুরীকে (পপি) গলা কেটে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার গভীর রাতে শহরের গোলাহাট ঘোড়াঘাট বাজার সংলগ্ন নিজ বাড়িতে এ ঘটান ঘটে। গুরুতর আহত পপিকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার গলায় ও হাতে ৪০টি সেলাই দেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় ভলুসহ দু’জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ। স্থানীয়রা জানায়, জীবন (২১) ও রাজা (১৭) হিটলার চৌধুরী ভলুর কর্মী হিসেবে তার সঙ্গে থাকে। গত বৃহস্পতিবার গভীর রাতে তারা দু’জন তার বাড়িতে প্রবেশ করে পপিকে গলা কেটে হত্যার চেষ্টা করে। এ সময় পাশে শুয়ে থাকা মেয়ে টের পেয়ে গেলে তার চিৎকারে তারা পালিয়ে যায়। এরপর প্রতিবেশীরা পপিকে উদ্ধার করে প্রথমে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখান থেকে তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী পপির ছোট মেয়ে তাসফিয়া লাবিবা চৌধুরী অদ্রি (৭) বলে, আমার মায়ের চিৎকারে ঘুম ভেঙে গেলে দেখি আমাদের মহল্লার জীবন ও রাজা ছুরি দিয়ে মায়ের গলা কাটছে। তখন আমি চিৎকার করে কাঁদতে থাকি। মা তাদের লাথি মেরে ও ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। রাজা ও জীবন তখন পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা জানায়, ভলু চৌধুরীর সঙ্গে কাজ করার সুবাদে জীবন ও রাজার ওই বাড়িতে নিয়মিত যাতায়াত ছিল। জীবন একই এলাকার মুন্নার ছেলে এবং রাজা মৃত সাগিরের ছেলে। এ ব্যাপারে হিটলার চৌধুরী বলেন, ওরা দুই জন (জীবন ও রাজা) আমার সাথে থাকে। কেন বা কী কারণে তারা এ ঘটনা ঘটালো তা এ মূহূর্তে বলা যাচ্ছে না। পুলিশ তদন্ত করছে। তদন্ত শেষ হলেই প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে। এ বিষয়ে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। ৈৈসয়দপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. আবুল হাসনাত খান বলেন, আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। এ ঘটনায় তদন্ত কাজ শুরু হয়েছে। এখন পর্যন্ত আমরা লিখিত কোনো অভিযোগ পাইনি। তবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হিটলার চৌধুরী ভলু ও জীবনের বাবা মুন্নাকে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।

Facebook Comments

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..