হুয়াওয়ে ডাটাবেজ রিসার্চে ২১.১৫ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করবে

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

ডাটাবেজ ইন্ডাষ্ট্রি ইকোসিস্টেমের সম্প্রসারণে একটি নতুন গবেষণা প্রোগ্রাম চালুর ঘোষণা দিয়েছে হুয়াওয়ে। স¤প্রতি চীনের বাণিজ্যিক নগরী সাংহাইয়ে অনুষ্ঠিত তিনদিনব্যাপী হুয়াওয়ে কানেক্ট ২০১৯ থেকে এই ঘোষণা দেওয়া হয়েছে বলে হুয়াওয়ে বাংলাদেশ অফিসের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। ‘গাউসডিবি গোল্ডেন সীডস ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম’ প্রকল্পের আওতায় হুয়াওয়ে গবেষণা খাত এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে মিলে প্রশিক্ষণ, ইন্টার্ণশিপ এবং কাজের সুযোগ তৈরি করার জন্য ২১ দশমিক ১৫ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করবে। বিভিন্ন কলেজ ক্যাম্পাসে হুয়াওয়ে ১০টি গাউসডিবি ইনোভেশন ল্যাব প্রতিষ্ঠা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে এবং ইতোমধ্যে কার্যক্রম শুরু করেছে ৪টি ল্যাবের। ল্যাব চারটি যথাক্রমে ইস্ট চায়না নরমাল ইউনিভার্সিটি (ইসিএনইউ), ইউহান ইউনিভার্সিটি (ডবিøউএইচইউ), চংকিং ইউনিভার্সিটি অব পোস্টস এÐ টেলিকমিউনিকেশন্স (সিকিউইউপিটি) এবং ন্যাশনাল ইঞ্জিনিয়ারিং ল্যাবরেটরি ফর বিগ ডাটা সফটওয়্যার অব দ্যা শিংশুয়া ইউনিভার্সিটিতে (এনইএলবিডিএস) প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে হুয়াওয়ের আইসিটি ষ্ট্র্যাটেজি এÐ মার্কেটিয়ের প্রেসিডেন্ট এবং এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর অব বোর্ড ডেভিড ওয়াং বলেন, “আমাদের প্রাত্যহিক কাজ জীবনযাত্রার মানকে প্রতিনিয়ত পরিবর্তন করছে ডাটা এবং ইন্টেলিজেন্স। ডাটা একটি নতুন রিসোর্সে পরিণত হচ্ছে এবং ইন্টেলিজেন্স বৃদ্ধি করছে উৎপাদনশীলতা। আগামি ১০ বছরে ডাটা ও ইন্টেলিজেন্স কনভার্জেন্সের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের জন্য হুয়াওয়ে পুরোপুরি প্রস্তুত।” “এছাড়াও আমরা গাউসডিবি অবকাঠামো উন্মোচনের মাধ্যমে ডাটাবেস শিল্পকে এগিয়ে নিয়ে যাবো এবং আসন্ন গাউসডিবি গোল্ডেন সীডস ডেভলপমেন্ট প্রোগ্রামে আমরা শীর্ষ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে কাজ করে আগামীর ডাটা অবকাঠামোর প্রতিভাদের খুঁজে বের করে তাদেরকে আরো দক্ষ করে তুলবো।” “আমরা গ্রাহক, অংশীদার এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সাথে একটি উন্মুক্ত এবং সহযোগিতামূলক ইকোসিস্টেম তৈরি করতে প্রতিশ্রæতিবদ্ধ, যা প্রত্যেককে উপকৃত করবে এবং নিয়ে আসবে ব্যবসায়িক সাফল্য। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ডিজিটাল অর্থনৈতিক ব্যবস্থা হলো আধুনিক শিল্প বিপ্লবের অপর নাম, যা বৈশ্বিক অর্থনৈতিক ব্যবস্থা পরিবর্তনের সাথে সাথে সমাজকেও বদলে দিচ্ছে। হুয়াওয়ের গেøাবাল ইন্ডাষ্ট্রি ভিশন (জিআইভি) রিপোর্ট ২০১৫ অনুযায়ী, বার্ষিক গেøাবাল ডাটার ব্যবহারের পরিমাণ ১৮০ জেটাবাইট (জেডবি) এ পৌঁছে যাবে, যার মাধ্যমে এন্টারপ্রাইজগুলো তাদের উৎপাদিত ডাটার ৮৬ শতাংশ ডাটাকে পুঁজিতে রুপান্তর করতে পারবে। ডিজিটাল অর্থনৈতিক ব্যবস্থাকে স্বাগত জানিয়ে সে অনুযায়ী কাজ করা এন্টারপ্রাইজের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। হুয়াওয়ে ইন্ডাষ্ট্রি পার্টনারদের সাথে কুনপেং ডেটা ইন্ডাষ্ট্রি ইকোসিস্টেম তৈরিতে কাজ করে যাচ্ছে। প্রতিটি ইন্ডাষ্ট্রিতে অ্যাসসেন্ড এবং কুনপেং প্রসেসরের মাধ্যমে ডাটা অবকাঠামো এবং ইন্ডাষ্ট্রি অ্যাপ্লিকেশন পরিচালনা করাই হুয়াওয়ের মূল লক্ষ্য।

Facebook Comments

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..