সংবাদ শিরোনাম :
বাংলাদেশ ডেন্টাল এসোসিয়েশন নরসিংদী জেলা শাখার ৫ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ও সংবর্ধনা আগামীকাল থেকে শুরু হচ্ছে বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব সিটি নির্বাচন স্থগিতের আবেদন, খারিজ হওয়া আদেশের বিরুদ্ধে আপিল সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত ১০ পুলিশ সদস্যের মৃত্যু বার্ষিকীতে নরসিংদী জেলা পুলিশের শ্রদ্ধা ১৫তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার চূড়ান্ত ফল প্রকাশ বাতিল হলো প্রাথমিক শিক্ষা সমাপণীতে বহিষ্কারের নিয়ম ১৭ মার্চ সন্ধ্যা থেকে মোমবাতি প্রজ্বলন কর্মসূচি শুরু করবে ১৪ দল আগামী ২৩ জানুয়ারি মিয়ানমারের রোহিঙ্গা গণহত্যার রায় রংপুরে বাস-অ্যাম্বুলেন্স সংঘর্ষে তিনজন নিহত রায়পুরায় জলবায়ু সংকট মোকাবেলায় করণীয় শীর্ষক সভা ও বৃক্ষরোপন

বিত্তবানদের কাছে সন্তানের জীবন ভিক্ষা চাইলেন মা-বাবা

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৭ অক্টোবর, ২০১৯

মো. মোস্তফা খান, রায়পুরা (নরসিংদী) থেকে: বিত্তবানদের সহযোগিতা পেলে বেঁচে যেতে পারে নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার চরমরজাল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণীর ছাত্র জয়ন্ত্র চন্দ্র বিশ্বাস (১৩)। টাকার অভাবে চিকিৎসা করতে না পারায় দিন দিন মৃত্যুর কুলে ঢলে পরার দৃশ্য দেখতে হচ্ছে গর্ভধারণী মা ও জন্মদাতা পিতাকে।

ডাক্তার বলেছে বøাড ক্যান্সার হয়েছে চিকিৎসা হলে ভাল হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্ত কাঠ মেস্ত্রীর কাজ করে অভাবের সংসারে দু’বেলা দু’মুঠো ভাত খাওয়াই যেখানে অসাধ্যকর, সেখানে ২০/২৫ লাখ টাকা খরচ করে চিকিৎসা করার চিন্তাই বৃথা। ফলে দিন দিন বিনা চিকিৎসায় মৃত্যুর কুলে ঢলে পড়ছে ৫ম শ্রেণীর ছাত্র জয়ন্ত্র চন্দ্র বিশ্বাস।

সরেজমিনে জানা যায়, চরমরজাল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণীর ছাত্র জয়ন্ত বিশ্বাস। তার বড় ভাই শ্যামল চন্দ্র বিশ্বাস স্থানীয় সবুজ পাহাড় মহা বিদ্যালয়ে এবার এইচএসসি দিতীয় বর্ষের ছাত্র। তারা উভয়েই উপজেলার মরজাল ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের চরমরজাল গ্রামের কাঠ মেস্ত্রী সন্তুস চন্দ্র বিশ্বাস ও বিনা রাণীর বিশ্বাসের সন্তান। গত ২০/২৫ আগে হঠাৎ করে জয়ন্ত্র বিশ্বাসের জ্বর আসে। প্রাথমিক চিকিৎসায় জ্বর নিয়ন্ত্রনে না আসায় তাকে নিয়ে যাওয়া হয় নরসিংদী জেলা হাসপাতালে। সেখানে বিভিন্ন ধরনের পরিক্ষা-নিক্ষিা শেষে ডাক্তার বললেন তার বøাড ক্যান্সার হয়েছে। পরে তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসাপাতালে নিয়ে ভর্তি করায়। সেখানে কিছুদিন থেকে সন্তানকে বাচানোর জন্য ধার-দেনা করে প্রায় দেড়লাখ টাকা খরচ করেন। কিন্তু কোন কাজ হয়নি। ডাক্তার বলেছেন সময় মত তাকে মাদ্রাজ নিয়ে উন্নত চিকিৎসা দিলে সে ভালো উঠার সম্ভাব না আছে। এসব শুনার পর হতভাগা মা-বাবা ভেঙ্গে পড়েন। পকেটে চিকিৎসা করার টাকা না থাকায় ঢাকা মেডিক্যাল থেকে সন্তানকে নিয়ে বাড়িতে নিয়ে আসেন।

জয়ন্ত বিশ্বাসের বাবা সন্তুস বিশ্বাস বলেন, টাকার অভাবে বিনা চিকিৎসায় চোখের সামনে সন্তানের করুন দৃশ্য আর সহ্য করতে পারছি না। ডাক্তার বলছে উপযুক্ত চিকিৎসা পেলে আমার সন্তান সুস্থ্য হয়ে উঠবে।

জয়ন্ত বিশ্বাসের মা বিনা রাণী বিশ্বাস বিত্তবানদের কাছে তার সন্তানের জীবন ভিক্ষা চেয়েছেন।

এসময় অসুস্থ্য জয়ন্ত বিশ্বাস প্রতিবেদককে কাছে পেয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন এবং কান্নাজড়িত কন্ঠে বলে উঠেন, আমি বাঁচতে চাই। আমাকে বাঁচিয়ে তুলেন আপনারা। আমি লেখাপড়া করে অনেক বড় হতে চাই।

এমতবস্থায় যে কোন হৃদয়বান বা বিত্তবান ব্যক্তি এগিয়ে আসার আহবান জানাচ্ছে তার পরিবার। আর্থিক সহযোগিতার জন্য নিন্মর মোবাইল নাম্বারে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করা হইল। নিচে জয়ন্ত বিশ্বাসের বাবার ব্যাংক একাউন্ট নাম্বার দেওয়া হলো। সন্তুস চন্দ্র, একাউন্ট নং: ২০৫০৩৯৫০২০০৬৩৮৬০৯, ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লি:, রায়পুরা শাখা, নরসিংদী। মোবাইল : ০১৮২২২১৩৭১৭।

Facebook Comments

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..