ধর্ষণ চেষ্টার পর বাড়িতে আগুন, অভিযুক্ত গ্রেপ্তার

  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ১১ অক্টোবর, ২০১৯

পঞ্চগড়ে দ্বিতীয় শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টা ও পরে তার বাড়িতে অগ্নিসংযোগের অভিযোগে এক কিশোরকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ধর্ষণ চেষ্টার শিকার ওই ছাত্রীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় ওই শিশুর বাবা আজ শুক্রবার পঞ্চগড় সদর থানায় একটি মামলা করেছেন। গ্রেপ্তার কিশোরের বাড়ি পঞ্চগড় সদর উপজেলার সাতমেরা ইউনিয়নের জোতসাওদা পুর্বডাঙ্গী এলাকায়।

মামলা সূত্রে জানা যায়, পঞ্চগড় সদর উপজেলার সতমেরা ইউনিয়নের একটি গ্রামে গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ৮টায় দ্বিতীয় শ্রেণির ওই ছাত্রী পাশের বাড়িতে প্রাইভেট পড়তে যায়। শিক্ষক না থাকায় সেখান থেকে ওই কিশোর তাকে ডেকে নিয়ে উঠানের শিম বাগানে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে। এ সময় শিশুটি চিৎকার করলে তার মা ও প্রতিবেশীরা এসে তাকে উদ্ধার করে। এ সময় কিশোর পালিয়ে যায়। এ নিয়ে উভয় পরিবারের মধ্যে ঝগড়াঝাটি হয়। এমনকি ওই কিশোরের পরিবার থেকে বিষয়টি নিয়ে বাড়াবাড়ি করলে দেখে নেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়।

এদিকে ঘটনার পর ওই ছাত্রী অসুস্থ হয়ে পড়লে তার পরিবারের লোকজন তাকে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করার জন্য নিয়ে যায়। এই ফাঁকে কিশোরটি ও তার বাবা-মা ছাত্রীর বাড়ির গোলাঘরে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে স্থানীয়রা পঞ্চগড় ফায়ার সার্ভিসে খবর দিলে তারা ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। অগ্নিকাণ্ডে ওই পরিবারের ৫০ হাজার টাকার সম্পদ আগুনে পুড়ে নষ্ট হয় বলেও মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে। রাতেই স্থানীয়রা ওই কিশোরকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। শুক্রবার ওই স্কুলছাত্রীরা বাবা বাদী হয়ে কিশোর ও তার বাবা মাকে আসামি করে পঞ্চগড় সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

পঞ্চগড় সদর থানার ওসি আবু আক্কাস আহমদ বলেন, নির্যাতিতা ওই শিশুটির বাবা বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন। নির্যাতিতা শিশুটির স্বাস্থ্য পরীক্ষা, বয়স নির্ণয় এবং আদালতের মাধ্যমে ২২ ধারায় জবানবন্দি নেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে। একই সাথে গ্রেপ্তার কিশোরের বিষয়ে সিদ্ধান্তের জন্য আদালতে হাজির করা হবে।

Facebook Comments

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..