সংবাদ শিরোনাম :
স্বপ্ন পূরণের সিঁড়িতে এ সময়ের ব্যস্ত অভিনেতা লোকমান রায়পুরায় কালের কন্ঠ শুভ সংঘের পরীক্ষা উপকরণ বিতরণ আসছে কামরুল জামান কায়েস এর ‘তোমার ভালোবাসা’ মনির হোসেনের মাঝে হুমায়ুন আহমেদ কথাসাহিত্যিক হুমায়ুন আহমেদের জন্মদিন আজ পঞ্চগড়ে সবুজ আন্দোলনের উদ্যোগে জলবায়ু সমস্যা ও উত্তরণের উপায় শীর্ষক সভা ও বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি রায়পুরায় আন্ত:গ্রাম ফুটবল টুর্নামেন্ট দ্বিতীয় দিনের খেলা অনুষ্ঠিত আল্লামা অলিপুরীর উপস্থিতিতে রাবেতাতুল ওয়ায়েজীনের বিশেষ বৈঠক বেনাপোল কাস্টম হাউসের ভল্ট ভেঙ্গে ১৯ কেজি স্বর্ণ চুরি মনোহরদীতে মাদক বিরোধী গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টে হাজারো মানুষের ঢল

কক্সবাজার জেলা বারে সবুজ আন্দোলনের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ৩০ অক্টোবর, ২০১৯

স্টাফ রিপোর্টার : আজ বুধবার (৩০ অক্টোবর) জলবায়ু সমস্যা মোকাবেলায় জনসচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে কক্সবাজার জেলা বারে সবুজ আন্দোলন এর পক্ষ থেকে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

শিক্ষানবীশ আইনজীবী মোঃ রেজাউল হকের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী পরিষদের সাধারণ সম্পাদক, আবুল কালাম আজাদ । প্রধান আলোচক ছিলেন, শিক্ষানবীশ আইনজীবী মোঃ রাসেল মিয়া।

প্রধান অতিথি বক্তব্যে বলেন, বৈশ্বিক উষ্ণায়ন ও জলবায়ুর পরিবর্তন প্রসঙ্গ উপেক্ষা করার উপায় আর নেই। তবু বিশ্বনেতাদের অনেকে বিষয়টি পাশে ঠেলে রাখতে চান। তাঁদের কারণে জাতিসংঘ জলবায়ু তহবিলের আকার সন্তোষজনক হচ্ছে না; জলবায়ুর পরিবর্তনজনিত ক্ষতি মোকাবেলায় পর্যাপ্ত উদ্যোগ দেখা যাচ্ছে না। সবচেয়ে বেশি ক্ষতির শঙ্কা বাংলাদেশের। তাই আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক পরিমণ্ডলে বাংলাদেশকে সোচ্চার হতে হবে। দেশের ভেতরেও বিভিন্ন কর্মসূচি নিতে হবে।

পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর উন্নয়ন পবিকল্পনা থেকে বিরত থাকতে হবে। জলাধার রক্ষা করতে হবে। নদীর নাব্যতা বাড়াতে হবে, বিল-জলাশয় খনন করতে হবে। বনাঞ্চল বাড়াতে হবে। উপকূলে সবুজ বেষ্টনীর পরিসীমা বাড়াতে হবে। পাহাড় কাটা বন্ধ করতে হবে। জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ করতে হবে। কর্মসূচি বাস্তবায়নে আন্তরিক হতে হবে।

তিনি আরো বলেন, বর্জ্য অব্যবস্থাপনা, দূষণ নিয়ন্ত্রণে কোনো ধরনের উদ্যোগ সঠিকভাবে না হওয়ায় এবং অপরিকল্পিতভাবে শিল্পায়নের ফলে আজ চরম ঝুঁকির মধ্যে বাংলাদেশের পরিবেশ। পানির মতো একটি প্রাকৃতিক সম্পদ কোনো ব্যবস্থাপনা ছাড়াই ব্যবহার করা হচ্ছে ইন্ডাস্ট্রিগুলোতে। ফলে বাতাসে ছাড়ছে অনিয়মতান্ত্রিক কার্বন। কেমিক্যালের চরম ব্যবহার পানিকে করছে সর্বোচ্চ পরিমাণ দূষিত আর এর সঙ্গে লোকালয়ের বিভিন্ন ধরনের ময়লা তো আছেই। পরিবেশের সুরক্ষা না দিতে পারলে টেকসই উন্নয়ন সম্ভব নয়। গড় করে মৃত্যুর হার আর অর্থনৈতিক ক্ষতির যে কথা বলা হচ্ছে, তার চেয়ে বড় সমস্যার দিকে ধাবিত হচ্ছি।

ঢাকার আশপাশের নদীগুলো এখন বিষের নহর। মাটির ব্যালান্সিং ক্ষমতা কমিয়ে দেওয়ার জন্য কম্পোজিট পানিই যথেষ্ট। বিভিন্ন দূষক একত্র হয়ে মাটিকে যখন ক্ষতিগ্রস্ত করছে তখন এমনিতেই ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে ভূগর্ভস্থ পানি। বাতাসের দূষণ ইটভাটার দিকে গেলেও অন্যান্য দূষণও কিন্তু আরো ৪২ শতাংশ। যখন পরিবেশের বায়ুদূষণের কথা উঠবে তখন সামগ্রিক দূষণ নিয়েই কাজ করতে হবে। আশ্চর্যজনক হারে বন ধ্বংস এবং অসাধু কর্মকর্তাদের চরম দুর্নীতির কারণে দূষণের কবলে পড়ছে মানুষ। নদী বাঁচানোর তাগিদ দেওয়ার চেয়েও নদীগুলোকে আগে থেকেই সংরক্ষণ করতে হবে। বায়োলজিক্যাল ইটিপি স্থাপনে জোর দিতে হবে ।

অন্যান্যদের উপস্থিত ছিলেন মুজিবুল হক,আব্দুর রহমান, ফারহান খালিদ,নাজিমউদ্দিন কাদেরসহ প্রমুখ।

Facebook Comments

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..