দ্বিতীয় ধাপে ৬১ পৌরসভার তফসিল ঘোষণা, ভোটগ্রহণ ১৬ জানুয়ারি

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক

দ্বিতীয় ধাপে দেশের ৬১ টি পৌরসভায় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। এসব পৌরসভায় আগামী ১৬ জানুয়ারি ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। ২৯টি পৌরসভায় ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে এবং বাকি ৩২টিতে ব্যলটের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ হবে।

বুধবার (২ ডিসেম্বর) বিকেলে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশন সচিবালয় থেকে এ তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে।

তফসিল অনুযায়ী মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় ২০ ডিসেম্বর।  মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই তারিখ ২২ ডিসেম্বর।  প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ২৯ ডিসেম্বর এবং ভোটগ্রহণের তারিখ ১৬ জানুয়ারি।

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সিনিয়র সচিব আলমগীর বলেন, দ্বিতীয় ধাপে ২৯টি পৌরসভায় ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে ভোটগ্রহণ করা হবে। বাকি ৩২টিতে ব্যলটের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ হবে।

ইসি সূত্র জানা যায়, বর্তমানে দেশে পৌরসভার সংখ্যা ৩২৯টি। নির্বাচন উপযোগী পৌরসভার সংখ্যা ২৫৯টি।  আগামী বছরের জানুয়ারিতে মেয়াদ শেষ হবে ১১ পৌরসভার।  ফেব্রুয়ারির মধ্যে মেয়াদ শেষ হবে ১৮৫ পৌরসভার।  এর মধ্যে ১ ও ২ ফেব্রুয়ারির মধ্যে মেয়াদ শেষ হবে ৪টি, ১০ ফেব্রুয়ারির মধ্যে মেয়াদ শেষ হবে ৪৬টি এবং ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে মেয়াদ শেষ হবে ১৩৩ পৌরসভায়।  মার্চে শেষ হবে ২৮ পৌরসভার মেয়াদ। এপ্রিল থেকে নভেম্বরে শেষ হবে ৩০টি মেয়াদ।  এবার পৌরসভায় মেয়র পদে দলীয় এবং সাধারণ ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে নির্দলীয় প্রতীকে ভোট হবে।

স্থানীয় সরকার আইন সংশোধনের পর ২০১৫ সালে প্রথম দলীয় প্রতীকে ভোট হয় পৌরসভায়। সেবার ২০টি দল ভোটে অংশ নেয়। সর্বশেষ ২০১৫ সালে ২৪ নভেম্বর পৌর নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। ৩৬ দিন সময় দিয়ে ভোটের তারিখ দেওয়া হয় ৩০ ডিসেম্বর। এক দিনে ভোট হয় ২৩৪টি পৌরসভায়। বাকিগুলোয় মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ বিবেচনায় ও বিভিন্ন জটিলতা সেরে ভোট হয়।

১৬ জানুয়ারি যে ৬১ পৌরসভায় ভোট

চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ; নেত্রকোনার মোহনগঞ্জ ও কেন্দুয়া; কুষ্টিয়ার সদর, মিরপুর, ভেড়ামারা, কুমারখালী; মৌলভীবাজারের কুলাউড়া; নারাণগঞ্জের তারাব; শরীয়তপুর সদর; কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী; গাইবান্ধা সদর ও সুন্দরগঞ্জ; দিনাজপুর সদর, বিরামরপুর ও বীরগঞ্জ; মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ; মাগুরা সদর; ঢাকার সাভার; নওগাঁর নজিপুর; পাবনার ভাঙ্গুড়া, ফরিদপুর, সাঁথিয়া, সুজানগর ও ঈশ্বরদী; রাজশাহীর কাকনহাট, ভাবনীগঞ্জ ও আড়ানী; সুনামগঞ্জ সদর, ছাতক ও জগন্নাথপুর; হবিগঞ্জের মাধবপুর ও নবীগঞ্জ।

ফরিদপুরের বোয়ালমারী; ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া ও মুক্তাগাছা; নাটোরের নলডাঙ্গা, গোপালপুর ও গুরুদাসপুর; বগুড়ার শেরপুর, সারিয়াকান্দি ও শান্তাহার; সিরাজগঞ্জ সদর, উল্লাপাড়া, বেলকুচি, রায়পুর ও কাজিপুর; পিরোজপুর সদর; মেহেরপুরের গাংনী; ঝিনাইদহের শৈলকুপা; খাগড়াছড়ি সদর; বান্দরবানের লামা; নীলফামারীর সৈয়দপুর; টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী; কুমিল্লার চান্দিনা; ফেনীর দাগনভূঞা; কিশোরগঞ্জ সদর ও কুলিয়াচর; নরসিংদীর মনোহরদী; নোয়াখালীর বসুরহাট এবং বাগেরহাটের মোংলাপোর্ট।

উল্লেখ, প্রথম ধাপে ২৫টি পৌরসভার তফসিল ঘোষণা করা হয়েছিল।

Facebook Comments

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..