নরসিংদীর রায়পুরায় রাতের অন্ধকারে বাড়ি-ঘরে হামলা ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ; ঘর থেকে নিয়ে তরুণী হত্যা

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২৮ জুন, ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক

নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার প্রত্যন্ত চরাঞ্চল পাড়াতলী ইউনিয়নের কাচারিকান্দী গ্রামে রাতের অন্ধকারে হামলা চালিয়ে প্রায় ২০টি বসতঘরে ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। এসময় আফসানা (১৬) নামে এক তরুণীকে ঘর থেকে তুলে নিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। নিহত আফসানা ওই গ্রামের নান্নু মিয়ার মেয়ে ও শাহআলম মেম্বারের সমর্থক।

রবিবার দিবাগত রাত আনুমানিক ২টায় উপজেলার কাচারিকান্দী গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানাযায়, স্থানীয় বর্তমান ইউপি সদস্য শাহ আলম মিয়া ও সাবেক ইউপি সদস্য মৃত ফজলু মেম্বারের সমর্থকদের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দ্বন্দ্ব চলে আসছিল। এরই জের ধরে রবিবার রাতে বর্তমান ইউপি সদস্য শাহ-আলম মেম্বারের সমর্থকদের বাড়িঘরে হামলা চালায় প্রতিপক্ষ গ্রুপে সমর্থকরা। এসময় বাড়িঘরে ব্যাপক ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটায় হামলাকারীরা। ওই সময়  শাহআলম মেম্বারের সমর্থক নান্নু মিয়ার মেয়ে আফসানা আক্তার (১৬) নামে এক তরুণীকে ঘর থেকে তুলে নিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠে।

সোমবার সকালে সরেজমিনে কাচারিকান্দী গ্রামে গেলে এলাকাবাসী জানায়, গ্রামের শাহ-আলম মেম্বারের সমর্থক শাজাহান মিয়ার পাকা বাড়িসহ প্রায় ২০টি আধাপাকা বসতঘরে ভাংচুর চালানো হয়।

ভুক্তভোগীরা জানায়, এর আগে বাড়িঘর ভাংচুর না করার জন্য  ঘর প্রতি  সর্বনিম্ম ১ লক্ষ থেকে ৪ লক্ষ টাকা মধ্যস্থ্যতা নেতৃবৃন্দকে তা দেওয়া হয়েছিল। বাড়িঘর ভাঙ্গবে না মর্মে যে  ঘরগুলো টাকা দেওয়া হয়েছিল সেগুলোতে লাল কালি দিয়ে মার্ক করে দেওয়া হয়। তারপরও এসব বাড়িঘর ভাঙ্গচুর ও অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে। বাদ পড়েনি অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্য আব্দুল ওয়াহাব এর বাড়িঘরও।

ওই রাতেই আফসানা আক্তার (১৬) নামে এক তরুনীকে ঘর থেকে তুলে নিয়ে হত্যা করে পাশের জমিতে ফেলে  রাখে হামলাকারীরা বলে অভিযোগ মৃত তরুণীর স্বজনরা।

মৃত তরুণীর মা আবেদা খাতুন জানান, রবিবার রাত দুইটার দিকে ৪-৫জন লোক আমার মেয়েকে মুখ চেপে ধরে ঘর থেকে তুলে নিয়ে যায়। এর কয়েক ঘন্টা পর পাশের জমিতে মেয়ের লাশ পরে থাকতে দেখি।

সাবেক ইউপি সদস্য মৃত ফজলু মেম্বারের সমর্থক বলার বাড়ির মফিজ উদ্দিন জানান, কিছুদিন আগে  আমার ভাইসহ দুইজনকে হত্যা করেছে শাহআলম মেম্বারের সমর্থকরা। এখন তারাই আবার আমাদের ফাঁসানোর জন্য ওই মেয়েকে হত্যা করেছে।

অপরদিকে, খাদ্দার বাড়ির ভুক্তভোগী রজব আলীর স্ত্রীর অভিযোগ, রাতের সহিংসতার ঘটনার সময় আনুমানিক ১০০গজ দূরে অবস্থিত পুলিশের ক্যাম্পে গিয়ে পুলিশী সহায়তা চাইলেও তারা কোনপ্রকার সহায়তায় এগিয়ে আসেনি।

এব্যাপারে বাশঁগাড়ী পুলিশ ফাড়িঁর ইনচার্জ লুৎফর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, হামলার খবরে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পুলিশ আফসানা নামে একটি মেয়ের মরদেহ  উদ্ধার করে। পরে তা  ময়না তদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

 

Facebook Comments

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..