সংবাদ শিরোনাম :
নরসিংদীর সূর্যমুখী ফুলের বাগানে ভীড় করছে শত শত ফুলপ্রেমী দর্শনার্থী নরসিংদীতে ইটভাটায় মাটি সরবরাহে নদীপাড়ের ফসলি জমিগুলোতে চলছে মাটি কাটার মহোৎসব আত্রাইয়ের গ্রামগুলোতে কুমড়ো বড়ি তৈরির ধুম ১৭ জানুয়ারি পর্যন্ত ৭ লাখ ৪১ হাজার জনকে বুস্টার ডোজ দেওয়া হয়েছে; সংসদে প্রধানমন্ত্রী নরসিংদীতে ৯2–ব্যাচ বন্ধুদের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত রায়পুরা উপজেলা প্রতিবন্ধী ফোরামের উদ্যোগে শীত বস্ত্র বিতরণ রায়পুরায় প্রধানমন্ত্রীর আর্থিক অনুদানের চেক পেলেন দরিদ্র নেতা-কর্মীরা রায়পুরার পিরিজকান্দি শামসুল উলমু নূরানীর মাদ্রাসার ১ম ইসলামী সম্মেলন সাংবাদিক নজরুল ইসলামের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে নরসিংদী জেলা রিপোর্টার্স ক্লাবের দোয়া ও মিলাদ করোনার ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণে আবারও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাঠদান বন্ধের ঘোষণা

আউটসোর্সিং করে শেরপুরে দশম শ্রেণীর ছাত্রের সফলতা

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১১ অক্টোবর, ২০২১

শেরপুর প্রতিনিধি:

শেরপুর সদর উপজেলার ইউনিয়নের গোয়াল পাড়া গ্রামের বাসিন্দা মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ আইডিয়াল কিন্ডারগার্টেন স্কুলে পড়াশোনার পাশাপাশি আউটসোর্সিং করে চরাঞ্চলের সকল শ্রেণীর মানুষের মাঝে আদরে পাত্র হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে ৷

তার সফলতার খবর পেয়ে জোনাকি টেলিভিশনের প্রতিনিধি আজ তার কাছে সফলতা কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, মানুষ ছোট থেকে সব শিখে থাকে না, তেমনি তার ছোট থেকে কিছু শিখা ছিল না তবে তার একটা ইচ্ছা ছিল সফল একজন ফ্রিল্যান্সার হওয়া। সেই তা বাস্তবায়ন করার জন্য অনেক চেষ্টা চালিয়ে যায়৷ পরিশেষে তিনি এক পর্যায়ে সফলতা লাভ করেন ৷

তিনি আরো বলেছেন কারো সাহায্য ছাড়া বিভিন্ন ওয়েবসাইট যেমন ইউটিউব ফেসবুক গুগল ইত্যাদি থেকে এসব কাজ শিখছেন। তার ভবিষ্যৎ জানতে চাইলে তিনি বলেন, তাকে তার এলাকার মানুষ যদি সাহায্য করে তাহলে তিনি এমন একটা প্রতিষ্ঠানে তৈরি করবেন, যেখানে দরিদ্র লোকদের ফ্রিতে এসব কাজ শিখানো হবে ৷

তার বাবা মোহাম্মদ আবদুল হাকিম এর কাছে জানতে চাইলে বলেন, আমার ছেলেকে অন্য সব ছেলেদের থেকে ভিন্ন দেখতাম তিনি কখনও খেলাধুলা করত না ,পড়ালেখার পাশাপাশি যতটুকু সময় পেত এসব কাজ নিয়ে ব্যস্ত থাকতো ৷ আঃ আহাদের সফলতার খবর জানতে পেরে আমার অনেক ভালো লাগলো৷

তিনি আরো বলেছেন আমি যদি আগে থেকে সাপোর্ট দিতাম হয়তো আরো ভালো কিছু করতে পারত ৷ আমার ছেলের জন্য সবাই দোয়া করবেন, সে যেন দেশের জন্য কিছু করতে পারে৷

উপরোক্ত বিষয় সত্যতা যাচাইয়ের জন্য স্কুলের প্রধান শিক্ষকের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি প্রায় সময় খেয়াল রাখতাম আঃ আহাদ ক্লাসের পর অবসর সময়ে ইন্টারনেটে ঘাটাঘাটি নিয়ে হতাশ অবস্থায় ছিল ৷ আজ সে সকলের মুখ উজ্জ্বল করেছে ৷ আমি মনে করি সকল ছাত্র-ছাত্রীদের পড়াশুনার পাশাপাশি খারাপ কাজের সাথে জড়িত না থেকে ভালো কাজে উদ্যোগী হওয়া ৷

তিনি আরো বলেন ,আমি তার জন্য দোয়া করি সে যেন বড় হয়ে দেশের জন্য কাজ করতে পারে ৷

Facebook Comments

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..