সংবাদ শিরোনাম :
নরসিংদীর সূর্যমুখী ফুলের বাগানে ভীড় করছে শত শত ফুলপ্রেমী দর্শনার্থী নরসিংদীতে ইটভাটায় মাটি সরবরাহে নদীপাড়ের ফসলি জমিগুলোতে চলছে মাটি কাটার মহোৎসব আত্রাইয়ের গ্রামগুলোতে কুমড়ো বড়ি তৈরির ধুম ১৭ জানুয়ারি পর্যন্ত ৭ লাখ ৪১ হাজার জনকে বুস্টার ডোজ দেওয়া হয়েছে; সংসদে প্রধানমন্ত্রী নরসিংদীতে ৯2–ব্যাচ বন্ধুদের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত রায়পুরা উপজেলা প্রতিবন্ধী ফোরামের উদ্যোগে শীত বস্ত্র বিতরণ রায়পুরায় প্রধানমন্ত্রীর আর্থিক অনুদানের চেক পেলেন দরিদ্র নেতা-কর্মীরা রায়পুরার পিরিজকান্দি শামসুল উলমু নূরানীর মাদ্রাসার ১ম ইসলামী সম্মেলন সাংবাদিক নজরুল ইসলামের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে নরসিংদী জেলা রিপোর্টার্স ক্লাবের দোয়া ও মিলাদ করোনার ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণে আবারও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাঠদান বন্ধের ঘোষণা

শারদীয় দুর্গোৎসব উপলক্ষে বিশেষ নাটক “বিসর্জন”

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৩ অক্টোবর, ২০২১

বিনোদন ডেস্ক

শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে অরোরা এ্যাড মিডিয়া ব্যানারে নির্মিত হয়েছে বিশেষ নাটক “বিসর্জন”। রাজীব মণি দাসের রচনা ও চিত্রনাট‍্যে নাটকটি পরিচালনা করেছেন সঞ্জয় রাজ। নাটকটির বিভিন্ন চরিত্রে দেখা যাবে- সঞ্জয় রাজ, সুমনা সোমা, এনিলা তানজুম, সঞ্জয় রাজ, রেবেকা রউফ, খলিলুর রহমান কাদেরী, আশরাফ করিব, প্রমুখ। নাটকটি দুর্গাপূজার দশমীর দিন এস এ টিভিতে রাত ৯টায় সম্প্রচার হবে। আর প্রযোজনা করেছেন অরোরা এ্যাড মিডিয়া।

কাহিনি সংক্ষেপ:
গাঁয়ের বধু বলতে যা বোঝাই সবই বিদ্যমান দিয়ার মাঝে। তার মনটা উদরতায় ভরা, যদিও তার শরীরের রং উজ্জ্বল শ্যাম বর্ণ, দেখতে যেন সাক্ষাত অন্নপূর্ণা। শশুড় শাশুড়ি থেকে আরম্ভ করে বাড়ির দশ দিক একাই সামলে রাখে দিয়া। স্বামীর অবহেলার কথা মনে পড়লেই দিয়ার মনটা হুহু করে কেঁদে উঠে। চোখ দিয়ে অশ্রু গড়িয়ে আসে। দিয়া কষ্টটা শশুড় শাশুড়ি বুঝতে পারে তাকে শান্তনা দেওয়া ছাড়া তাদের আর কোনো কিছু করার নেই।

দিয়া বোন দিব্যা পূজা উপলক্ষে বেড়াতে আসে। দিব্যাকে দেখে দীপকের মনটা হুহু করে উঠে কারণে সে দিয়ার থেকে অনেক সুন্দরী। আজ কাল দীপককে বেশ হাস্য উজ্জ্বল দেখা যায় এটা দিয়ার কাছে খুব ভালো লাগে। দীপক বিভিন্ন সময় শালিকাকে নিয়ে ঘুরতে যায়। কথাচ্ছলে ঘুরার চ্ছলে কখন যে তাদের মধ্যে এক প্রকার হৃদ্যতার সম্পর্ক ঘরে উঠেছে সে বুঝতে পারেনা।

দিব্যা ও দীপক একজন আরেক জনকে ছাড়া বাঁচতে পারবেনা। তাদের মাঝখানে কাটা হয়ে দাঁড়িয়ে আছে দিয়া। দিব্যার চলা ফেরা দিয়ার শশুড় শাশুড়ি সন্দেহের চোখে দেখে। আর তাদের এ সন্দেহকে পাশ কাটাতে দিয়া তাদেরকে বলে, পূজা শেষ হয়ে গেলেই তো দিব্যা চলে যাবে শুধু শুধু ওর মনে কষ্ট দিয়ে লাভ কি।

রাতের আধারে দীপক ও দিব্যা পরিকল্পনা করে কিভাবে তাদের দু’জনের মাঝখানের কাটাকে সরিয়ে ফেলা যায়। প্লান হয় দশমী পূজার দিন সবাই ঠাকুর বিসর্জন নিয়ে ব্যস্ত থাকে সেই সময় তার দু’জন মিলে দিয়াকে পুকুরে ফেলে দিয়ে মেরে ফেলবে। মানুষ মনে করবে যে হয়তো মায়ের প্রতিমার নিচে পড়ে দিয়ার মৃত্যু হয়েছে।

সহজ সরল দিয়া স্বামীর কথায় বিশ্বাস করে এবং তার ফাঁদে পা দেয়। দিয়া দশমী পূজার দিন দীপকের সাথে বের হয়, সে এমন রূপে স্বজিত হয়েছে যেন সাক্ষাত দূর্গা মা। অন্যের জন্য ফাঁদ পাতলে সে ফাঁদে নিজেকেই পরতে হয়। সেটা প্রমাণ পাওয়া যায় যখন দিয়াকে ধাক্কা দিতে গিয়ে ঘটনাক্রমে কোনো কিছুর সাথে লেগে জলে মধ্যে পড়ে যায় দিব্যা। দীপক কোনো কিছু বুঝে উঠার আগে দূর্গা মা’র সাথে দিব্যা বির্সজন হয়ে যায়।

Facebook Comments

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..